কিছু বোঝার আগেই খাঁচা থেকে হঠাৎ বেরিয়ে ব্যক্তির মাথায় কামড় বিশালাকার পাইথনের, ভিডিও দেখে হাঁ নেটদুনিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের এই পৃথিবীতে বহু প্রজাতির সাপ রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন আনাচে কানাচে সবমিলিয়ে প্রায় ২৯০০ প্রজাতির সাপ দেখতে পাওয়া যায়। যার মধ্যে সব থেকে বিষধর সাপেদের তালিকায় একেবারে প্রথম সারিতে রয়েছে অজগর। এই সাপের আক্রমণের পরে মানুষের বেঁচে থাকার কথা ভাবাও যায় না। পূর্ণবয়স্ক মানুষ বা হাতিকে মাত্র কিছু মুহূর্তের মধ্যেই এটি মেরে ফেলতে পারে।

অন্যান্য অনেক হিংস্র প্রাণী বাড়িতে পোষা গেলেও সাপ কিন্তু কখনোই পোষা যায় না। সম্প্রতি নেট মাধ্যমে এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে উঠে এসেছে যা দেখে রীতিমতন অবাক নেটিজেনরা। এরকম ঘটনা যে ঘটতে পারে তা হয়তো তাদের ধারণার মধ্যেই ছিল না।।কি এমন রয়েছে এই ভাইরাল ভিডিওতে? আসলে এই ভিডিওতে আমরা দেখতে পাচ্ছি বাড়ির খোলা উঠোনের মধ্যেই এক ব্যক্তি খাঁচার মধ্যে থাকা অজগরের সাথে খেলা করছে।

তবে সেই খেলা যে তার ক্ষণস্থায়ী সেটা হয়তো বোঝা যায়নি। কারণ বেশ কিছুক্ষণ এই খেলা চলার পর আচমকাই সাপটি খাঁচা থেকে বেরিয়ে এসে ওই ব্যক্তির হাতে কামড় বসিয়ে দেয় এবং জায়গাটি ধরে তাকে জড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। সাথে সাথেই বাড়ির সদস্যরা সাপটিকে ছাড়ানোর জন্য ছুটে আসেন কিন্তু তাতেও কোন রকমের ফল হয়নি। এমনকি ধারালো অস্ত্র দিয়ে সাপটাকে কোপ মারা হয়। তবে তারপরেও ওই ব্যক্তিকে সাপ কিন্তু নিজের কবল থেকে ছেড়ে দেয়নি ‌।

মাত্র কয়েক মিনিটের এই ভিডিওটিতে শেষ পর্যন্ত কি ঘটলো তা যদিও জানা যায়নি। তবে কিভাবে এত বিষধর আর ভয়ংকর সাপকে তারা বাড়িতে রেখেছিলেন সে নিয়ে কিন্তু সকলের মনেই বিভিন্ন প্রশ্ন রয়েছে! সাধারণত এত বিষধর প্রাণীকে কিন্তু কোনরকম পারমিশন ছাড়া এভাবে ঘরে রাখা যায় না। কারণ যে কোন মুহূর্তে তারা আক্রমণাত্মক হয়ে বিপদ ঘটাতে পারে। অজগর সাপের মতন সরীসৃপ কখনোই পোষ্য প্রাণী হতে পারে না। সুতরাং তাকে এভাবে খাচায় আটকে রেখে বাড়িতে বিপদ নিয়ে আসার কারণ নিয়ে ভিডিওটি দেখার পরে বহু মানুষ প্রশ্ন তুলেছেন।

 

View this post on Instagram

 

A post shared by @laris_a9393

laris_a9393’ নামের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেল থেকে এই ভিডিওটি আপলোড করা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত কয়েক লক্ষ মানুষ এই ভিডিওটি দেখেছেন এবং ব্যাপক পছন্দ করেছেন। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানুষের এই পছন্দের কারণ কিন্তু ভয়। অসাধারণ এই ভিডিওটি দেখার পর আপনাদের কি নিজস্ব মতামত রয়েছে তা আমাদের সাথে কমেন্ট বক্সে শেয়ার করে নিতে পারেন। আপনাদের মূল্যবান মতামত আমাদের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

Back to top button