সুন্দরবনে কাঁকড়া ধরতে গিয়ে ঘটলো বিপদ! বিশালাকার বাঘের মুখে পরলো মহিলা, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদন: পৃথিবীর অন্যতম বনভূমিগুলির মধ্যে রয়েছে সুন্দরবন অঞ্চল। এর মোট আয়তন ১০০০০ বর্গকিলোমিটার যা যৌথভাবে ভারত আর বাংলাদেশের মধ্যে অবস্থিত রয়েছে। রয়েল বেঙ্গল টাইগার সহ নানান ধরনের পাখি, চিত্রা হরিণ, কুমির ও সাপসহ অসংখ্য প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল এই সুন্দরবন। একটি হিসেব অনুযায়ী এখানে রয়েছে প্রায় ৩৫০ প্রজাতির উদ্ভিদ, ১২০ প্রজাতির মাছ, ২৭০ প্রজাতির পাখি, ৪২ প্রজাতির স্তন্যপায়ী,৩৫ প্রজাতির সরীসৃপ এবং ৮টি প্রজাতির উভচর প্রাণী।

সুন্দরী বৃক্ষের নাম অনুযায়ী এই বনের নাম সুন্দরবন রাখা হয়। এর ভেতরে যেতে হলে নৌ পথ ছাড়া কিন্তু আর অন্য কোন রাস্তা বিশেষ নেই। জীবন-জীবিকা থেকে শুরু করে মানুষ অন্যান্য কাজের জন্য সুন্দরবনের গহীন অরণ্যে প্রবেশ করে থাকেন এবং নানান বিপদের মুখোমুখি হন।। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রায় সময় এই বিভিন্ন ঘটনাগুলি ভাইরাল হয়ে উঠে আসে।

যেমন সম্প্রতি একটি ভাইরাল ভিডিওতে আমরা দেখতে পাচ্ছি। সোশ্যাল মিডিয়াতে নানান ধরনের দৃশ্য ভাইরাল হয়ে থাকে। শিশু থেকে বয়স্ক সকলেই এখন নেট দুনিয়ার বাসিন্দা। বিভিন্ন শিক্ষামূলক ভিডিও থেকে শুরু করে অবসর বিনোদন সবকিছুই এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় পাওয়া যায়। সম্প্রতি যে ভিডিওটি উঠে এসেছে তা সুন্দরবনের এলাকা থেকে। ভিডিওটি দেখে বেশিরভাগ নেট নাগরিকরাই কিন্তু রীতিমতন অবাক হয়ে গিয়েছেন।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে দুজন মহিলা অর্থাৎ মা ও মেয়ে সুন্দরবনের গহীন অরণ্যে প্রবেশ করেছে কাঁকড়া ধরার জন্য। এই সমস্ত অঞ্চলে খাদ্যের প্রয়োজনে অথবা জীবন জীবিকার প্রয়োজনে অনেকেই এভাবে গহীন অরণ্যে গিয়ে থাকেন। বেশ কিছুক্ষণ সময় নিয়ে মাটি থেকে কাকড়া বের করে সেগুলোকে ঝটপট ধরে নেন এই দুই মহিলা। খুব সুন্দর ভাবে নিখুঁত করে তারা এই কাজটি করেন। কিন্তু এটি করতে করতে কখন তারা নিজেরাই একেবারে ঘন জঙ্গলের মধ্যে ঢুকে গিয়েছেন সেটা টের পাননি। আচমকাই তারা বনের ঠিক অন্য এক প্রান্তে রয়েল বেঙ্গল টাইগার অর্থাৎ ভয়াবহ মানুষ খেকো বাঘ দেখতে পান।। কোন মতে ক্যামেরায় সেই দৃশ্য ধরা পড়ে এবং তারা সেখান থেকে পালিয়ে যান।

শুরুতেই জানিয়ে রাখি এটি একটি ভ্লগ ভিডিও। এখনো পর্যন্ত যা ২৪ হাজার মানুষ দেখে নিয়েছেন এবং ৪০০ জন পছন্দ করেছেন। তবে অনেকেই বলেছেন সম্ভবত এই ভিডিওটি এডিট করা। কারণ কমেন্ট বক্সের মধ্যে অনেকেই এই ভিডিওটি আগে দেখেছেন। যদিও এই সম্পর্কে কিছু জানাননি এই যুবতী। এই ভিডিওটি দেখে আপনাদের কি মনে হয় বন্ধুরা? সত্যিই কি এটি একটি এডিটেড ভিডিও! দেখার পর অবশ্যই নিজস্ব মতামত আমাদের সঙ্গে শেয়ার করে নেবেন।।

Back to top button