কমলালেবুর খোসা কি ফেলে দেন? ভুলেও ফেলবেন না আর! বাঁচবে সংসারের অনেক খরচ

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতকালের উল্লেখযোগ্য ফলগুলির মধ্যে প্রথমেই কমলালেবুর কথা বলা যেতে পারে। এই ফলটি মানুষের একটি অত্যন্ত প্রিয় ফলের মধ্যে অন্যতম। কমবেশি সবাই কিন্তু শীতকালে এই ফলটির স্বাদ গ্রহণ করে থাকেন। সাধারণত কমলালেবু খাবার পরে এর খোসা ফেলে দেওয়া হয়ে থাকে। তবে আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না কমলালেবুর খোসা কিন্তু ভুল করেও ফেলে দেওয়া উচিত নয়। এই খোসা দিয়ে অনেক কাজ কিন্তু আপনারা সহজেই করে নিতে পারবেন। চলুন আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে কমলালেবুর খোসার কিছু বিশেষ কাজ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।।

১) আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই কিন্তু জুতো থাকে। দীর্ঘদিন এটি ব্যবহার করতে করতে খুব বাজে গন্ধ হয়ে যায়। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে আপনারা কমলালেবুর খোসা জুতোর মধ্যে দিয়ে রাখতে পারেন যাতে বাজে গন্ধ না বেরোয়।

২) এয়ার ফ্রেশ করার জন্যেও কিন্তু আপনারা কমলালেবুর খোসা ব্যবহার করতে পারেন। বিশেষ করে রান্নাঘরে অনেক সময় এক প্রকার বাজে গন্ধ বেরোয়। এটা দূর করার জন্য একটা সুতির কাপড়ের মধ্যে মুড়ে কমলালেবুর খোসা রেখে দিন। ফলাফল হাতে নাতেই দেখতে পারবেন।

৩) যারা পাখি অত্যন্ত পছন্দ করে থাকেন তারা অবশ্যই এই তৃতীয় টিপসটি ফলো করতে পারেন। কমলালেবুর খোসা একেবারে সমান করে কেটে তার মধ্যে কিছুটা পরিমাণ মুড়ি আর টুটি ফ্রুটি নিয়ে সুতো দিয়ে বেঁধে কোন উঁচু জায়গায় ঝুলিয়ে রাখুন যেখানে পাখি আসতে পারে। এটা কিন্তু পাখিদের জন্য একটা উল্লেখযোগ্য খাবার হিসেবে কাজ করবে।

৪) যাদের বাড়িতে ফ্রিজ রয়েছে দীর্ঘ সময় পরিষ্কার না করলে কিন্তু তারাও একটা খুব বাজে গন্ধ ভেতর থেকে পেয়ে থাকেন। যাতে সব খাবারের মধ্যে এই গন্ধ ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য একটা কমলা লেবুর খোসার মধ্যে কিছুটা পরিমাণ লবণ রেখে দিন। ফ্রিজের এক কোনায় এটাকে রেখে দিলেই দেখবেন আর কোন গন্ধ থাকবে না।

৫) ত্বকের চর্চার ব্যাপারেও কিন্তু কমলালেবুর কোন জুড়ি নেই বলা যায়। কমলালেবুর খোসা খেয়ে ছোট ছোট টুকরো করে রোদে শুকিয়ে পাউডার বানিয়ে নিন। তারপর মধু বা টক দই এর সাথে মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে নিন। দেখবেন কোন রকমের কালো দাগ আর ত্বকে থাকবে না। পাশাপাশি আপনার ত্বক আবার হারানো উজ্জ্বলতা ফিরে পাবে।

৬) কমলালেবুর খোসার মধ্যে সামান্য পরিমাণ মন দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে সেটাকে জলে ভাসিয়ে দিলে খুব সহজেই কিন্তু অরেঞ্জ পিল ক্যান্ডেল তৈরি হয়ে যাবে। ঘরের সৌন্দর্য ধরে রাখতে বা ঘর সাজাতে এটা কিন্তু ভীষণ সুন্দর ভাবে কার্যকরী।

৭) এবারের টিপস কিন্তু ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। প্রথমেই কড়াইতে কিছুটা পরিমাণ জল নিয়ে তাতে কমলালেবুর খোসা দিয়ে ভালো করে ফুটিয়ে নিতে হবে। খোসাগুলো নরম হয়ে যাওয়ার পর একটা অন্য পাত্রে তুলে নেবেন এবং জলটাকে বোতলে ভরে গাছে দেওয়ার জন্য ব্যবহার করবেন। পোকামাকড়ের হাত থেকে গাছ সহজেই রেহাই পেয়ে যাবে।

অন্যদিকে যে খোসাটা আলাদা করে রেখেছিলেন সেটাকে গ্রাইন্ডারে ভালো করে একটা পেস্ট তৈরি করে নিন। এবার একটা সুতির কাপড়ের মধ্যে পেস্ট দিয়ে সামান্য পরিমাণ জল যোগ করে ভালোভাবে ছেঁকে নিতে হবে। এই উপাদানটি একদিকে যেমন গাছের গোড়ায় সারের কাজ করবে। ঠিক তেমনভাবেই কিন্তু আপনার ত্বকের ফেসপ্যাক হিসেবেও সাহায্য করবে।

৮) খোসা ভাপিয়ে যে জলটা পেয়েছিলেন সেটাও কিন্তু আরো একটা কাজে আপনারা ব্যবহার করতে পারেন। ভালোভাবে ছেঁকে কোন স্প্রে বোতলে ভরে নিলে খুব সহজেই এটা দিয়ে রান্না ঘরের সিঙ্ক থেকে শুরু করে গ্যাস ওভেন আপনারা সবকিছুই পরিষ্কার করতে পারবেন।।

৯) কমলালেবুর খোসা ভাবানো এই জল দিয়ে বাসনপত্র পরিষ্কারের কাজও আপনারা খুব সহজেই করতে পারবেন। যেরকমভাবে লিকুইড ডিশওয়াশ ব্যবহার করেন তেমনভাবেই এটাকে ব্যবহার করে বাসন ধুয়ে নিতে হবে।

১০) লংড্রাইভে যেতে ভালোবাসেন এই সর্বশেষ টিপসটি শুধুমাত্র তাদের জন্য। লং ড্রাইভে যেতে চাইলে একটা কমলা লেবুর খোসা নিজের সঙ্গে রাখুন দেখবেন আর কোন রকমের বমি ভাব আসবে না।।

Back to top button