মাত্র ৫০ টাকা থেকে পেয়ে যান যেকোনো ব্র্যান্ডেড কোম্পানির জুতো! কলকাতার এখান থেকে কিনে শুরু করুন ব্যবসা, ১২ মাস দেখবেন লাভের মুখ

নিজস্ব প্রতিবেদন: অর্থ উপার্জনের জন্য বর্তমানে বহু মানুষ কিন্তু নানান ধরনের ব্যবসার কাজে যোগদান করেছেন। কিন্তু কিছু ব্যবসা এমন রয়েছে যেগুলো আমাদের অল্প সময়ের মধ্যেই প্রতিষ্ঠিত হতে সাহায্য করে। আসলে ব্যবসার এই প্রতিষ্ঠিত হওয়ার ক্ষমতা নির্ভর করে পণ্যের চাহিদার উপর। যে প্রোডাক্টের যত বেশি চাহিদা তার বিক্রিটাও ততটাই বেশি।

সুতরাং আপনারা যদি এমন ব্যবসা শুরু করেন যেখানে কখনোই পণ্যের চাহিদার অভাব হবে না তাহলে কিন্তু নিঃসন্দেহে একটি বড় অংকের অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করে নেব জুতোর ব্যবসার আইডিয়া। আপনারা সকলেই জানেন জুতোর ব্যবসা করতে গেলে মোটামুটি কয়েকটা স্টেপ অতিক্রম করতে হয়। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা সেই স্টেপগুলি সম্পর্কেই বিস্তারিত আলোচনা করতে চলেছি।

জুতোর ব্যবসা শুরু করতে গেলে আপনাদের প্রথমেই এমন পাইকারি মার্কেট খুঁজে নিতে হবে যেখানে অত্যন্ত সুলভ মূল্যে আপনারা জুতোগুলো পেয়ে যাবেন।। আপনারা কিন্তু চাইলে ফাস্ট কপিও কিনে বিক্রি করতে পারেন। নামিদামি ব্র্যান্ডের জুতোর বহু ফাস্ট কপি আজকাল বাজারে উঠে এসেছে। এগুলো বেশ চড়া দামে বিক্রি করা হয়।। কলকাতার বুকে এরকম বহু দোকান আপনারা পেয়ে যাবেন যেখানে একেবারে রাস্তার উপরে বিভিন্ন জুতোর ফাস্ট কপি অত্যন্ত কম দামে বিক্রি করা হয়ে থাকে। পাইকারি দরে এখান থেকে প্রোডাক্ট কিনে আপনারা সহজেই লোকাল মার্কেটে বিক্রি করতে পারেন।

প্রত্যেকটা প্রোডাক্টের উপর আপনারা প্রায় ১০০ টাকার কাছাকাছি লাভ রাখতে পারবেন। লেডিস আর জেন্টস দু ধরনের জুতোর কালেকশনে কিন্তু আপনারা রাখতে পারেন। তবে অবশ্যই জুতোর ব্যবসা করার সময় যে কয়েকটি জিনিস আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে তা হল—প্রোডাক্টের প্যাকেজিং অর্থাৎ বিক্রির সময় আপনার প্রোডাক্ট যেন খুব সুন্দর ভাবে প্যাক করা থাকে।

কোন রকমের ডিসপুট না থাকে অর্থাৎ প্রোডাক্ট একেবারে নিখুঁত থাকে। মনে রাখবেন আপনার পণ্যের গুণগত মান কিন্তু আপনার ব্যবসার পরিচয়। গুণগতমান ছাড়া কখনোই কোন পণ্য বাজারে দাঁড়াবে না। সুতরাং জুতোর ব্যবসা শুরু করতে গেলে আপনারা আর সময় নষ্ট না করে আজ থেকেই এর উপর কাজ শুরু করে দিন। বিশেষ এই প্রতিবেদন টি কেমন লাগলো তা অবশ্যই জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button