বাড়িতে থাকা এই ঘরোয়া একটি জিনিস দিন পেয়ারা গাছে, মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই ফলে ভরে উঠবে গাছ

নিজস্ব প্রতিবেদন: পেয়ারা এমন একটি ফল যা ছোট থেকে বড় সকলেই কিন্তু কমবেশি খেতে অত্যন্ত ভালোবাসেন। বাড়ির বাগানে খুব সহজেই এই গাছ চাষ করা যেতে পারে। সাধারণ জমিতে চাষ করার থেকে বাড়ির বাগানের চাষের পদ্ধতি কিন্তু একটু আলাদা হবে।সাধারণত শহর অঞ্চলে বাড়ির ছাদে টবে অনেকেই পেয়ারা চাষ করে থাকে। টবে পেয়ারা চাষ পদ্ধতি জনপ্রিয় হওয়ার কারণ হল সহজে পরিচর্যা করা যায় এবং এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সহজে সরানো যায় ।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সাথে কিভাবে টবে পেয়ারা গাছ চাষ করা যেতে পারে এবং তার জন্য কি কি পরিচর্যা করা প্রয়োজন সেই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে চলেছি। চলুন আর সময় নষ্ট না করে আমাদের এই প্রতিবেদনের মূল পর্বে যাওয়া যাক।

পেয়ারা চারা রোপনের জন্য টবের মাটি তৈরি কিভাবে করবেন?

চারা রোপনের আগে যখন আপনারা মাটি প্রস্তুত করবেন তখন আপনাদের অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে এই মাটির মধ্যে যেন প্রয়োজনীয় সমস্ত পুষ্টি উপাদান থাকে। প্রথমেই একটি ছিদ্রযুক্ত টব নিয়ে নেবেন এবং তার মধ্যে মাটি তৈরি করার জন্য প্রথমে দুই ভাগ মাটি ও এক ভাগ গোবর সঠিকভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। এরপর এই মিশ্রণের সাথে ১৩০ গ্রাম টিএসপি ও ৭০ গ্ৰাম এমপি সার মিশিয়ে নিতে হবে। মাটি প্রস্তুত হয়ে গেলে বাজারের যে কোন নার্সারি থেকে ভালো মানের পেয়ারার চারা নিয়ে এসে রোপন করবেন।

গাছের যত্ন এবং সারের প্রয়োগ:

মনে রাখবেন অতিরিক্ত জল কিন্তু পেয়ারা গাছে একেবারেই প্রয়োগ করা যাবে না। তাই গাছ লাগানোর পর আপনাদের একটু বুঝেশুনে এতে জল দিতে হবে।এছাড়া পরিচর্চার অন্যান্য কাজের মধ্যে অপ্রয়োজনীয় ডালপালা ছাঁটাই করা একটি প্রধান কাজ । সাধারণত পেয়ারা গাছের পুরোনো ডালে কোন ফল আসে না। অপেক্ষাকৃত নতুন ডালে ভালো ফল হয়। এবার আসা যাক সার প্রয়োগের কথায়।

গাছের বৃদ্ধি যাতে ব্যাহত না হয় এবং গাছে যাতে অন্যান্য কোন সমস্যা দেখা না যায় তার জন্য গোবর ৫ কেজি, ইউরিয়া ৮০ গ্ৰাম, ফসফরাস ১৫০ গ্ৰাম এবং পটাশ ১০০ গ্ৰাম পেয়ারা গাছের গোড়া থেকে যথেষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে। পেয়ারা গাছে এমন অনেক পোকামাকড়ের আক্রমণ ঘটে যা গাছের পাতাকে ফুটো করে দেয় এবং পাতা হলদেটে করে তোলে।এই সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য প্রতি ১০ লিটার পানিতে ১০ গ্রাম পরিমাণ ডেরিস,বা ২০ গ্ৰাম ডারবাসন ব্যবহার করতে পারেন।

এছাড়াও গাছের আরো কয়েকটি দিকে আপনাদের খেয়াল রাখতে হবে। যদি ছত্রাকের আক্রমণের কারণে পেয়ারা গাছের পাতা শুকিয়ে যায় তাহলে এক গ্রাম পরিমাণে ব্যভিসটিন এক লিটার জলে মিশিয়ে গাছে স্প্রে করে দেবেন।ফুল আসার আগে রিপকরড/ ভেজিম্যাক্স সঠিক মাত্রায় ব্যবহার করতে হবে।

গাছ যাতে নেতিয়ে না পড়ে এবং সর্বদা সতেজ অবস্থায় থাকে তার জন্য সবজির পচা অংশ বা গোবর অথবা সরিষার খৈল জলে ভিজিয়ে প্রয়োগ করবেন। এটা কিন্তু সহজেই আপনারা বাড়িতে তৈরি করে গাছে প্রয়োগ করতে পারবেন। পেয়ারা ছাড়াও অন্যান্য গাছের ক্ষেত্রে এই সবুজ সার বিশেষ কার্যকরী। স্টেপ বাই স্টেপ সমস্ত যত্ন করলে কিন্তু গাছ একটু পরিণত হলেই আপনাকে বাম্পার ফলন দেবে খুব সহজেই।

Back to top button