খোলামেলা কণ্ঠে অবিকল লতা মঙ্গেশকরের মতো গান গেয়ে মন জিতলেন মিঠাই সিদ্ধার্থ পুত্র শাক্য, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলা টেলিভিশনের পর্দায় সব থেকে জনপ্রিয় ধারাবাহিক গুলির মধ্যে একেবারে প্রথম সারিতে রয়েছে মিঠাই। বিগত বছর দুয়েক সময় ধরে এই ধারাবাহিক রীতিমত বঙ্গ সেরা আসন দখল করে রেখেছিল। তবে এখন টিআরপি তালিকা দেখতে গেলে বলা যায় এই ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা অনেকটাই নিম্নমুখী। যদিও দর্শকদের মাঝে এই ধারাবাহিককে তুলে ধরার জন্য গল্পে বেশকিছু টুইস্ট নিয়ে এসেছেন নির্মাতারা।

সম্প্রতি গল্পে দেখানো হচ্ছে ধারাবাহিকে বেশ কয়েক বছরের লিপ চলে এসেছে এবং আগুনে পুড়ে মারা গিয়েছে ধারাবাহিকের মূল চরিত্র মিঠাই। এই দৃশ্যটি দর্শকদের অত্যন্ত আবেগপ্রবণ করে তুলেছিল। অনেকেই এই পট পরিবর্তন সহজে মেনে নিতে পারেননি। যদিও কিছু সময়ের মধ্যেই দর্শকদের চাহিদা এবং পছন্দের কথা মাথায় রেখে ধারাবাহিকে আবারো অন্যরূপে মিঠাই অর্থাৎ মিঠিকে ফেরত নিয়ে আসা হয়।

আপাতত গল্পের প্লট অনুযায়ী এই ধারাবাহিকের কেন্দ্রীয় চরিত্রের জায়গা দখল করে রেখেছে মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের একমাত্র ছেলে শাক্য। নিজের একমাত্র সন্তানকে সামলাতে গিয়ে রীতিমতন নাজেহাল হয়ে গিয়েছে একসময়ের উচ্ছে বাবু। শেষ পর্যন্ত যখন উচ্ছে বাবু শাক্যকে বোর্ডিং স্কুলে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় তখন মিঠাইয়ের একমাত্র সন্তানের কথা মাথায় রেখে মোদক পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তার জন্য প্রাইভেট টিউটর নিযুক্ত করার চেষ্টা করে।

সেই প্রাইভেট টিউটর হিসেবে বাড়িতে আসে হুবহু মিঠাইয়ের মতন দেখতে একজন, যার নাম মিঠি। আর তাকে দেখেই অবাক গোটা মোদক পরিবার। যদিও পরিবারের সিদ্ধান্তে মেনে নিলেও প্রাইভেট টিউটর রাখার ব্যাপারটিতে একেবারেই মত ছিল না সিদ্ধার্থের। সবমিলিয়ে গল্প এখন রীতি মতন ঝড়ের গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।

আপাতত মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের একমাত্র সন্তান শাক্যর চরিত্রে অভিনয় করছেন ধৃতিষ্মান চক্রবর্তী। দর্শকেরা বেশ পছন্দ করেছেন এই খুদের অভিনয়। তবে পাঠকদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে রাখি অভিনয় ছাড়াও কিন্তু এই শিশুটির মধ্যে বেশ কিছু প্রতিভা রয়েছে। বর্তমানে তার বয়স পাঁচ বছর। কিন্তু এই বয়সেই ৫টি ভাষা, যথা; অহমিয়া, সংস্কৃত, বাংলা, হিন্দি এবং ইংরাজিতে দক্ষ গায়কের মত গান গাইতে পারে ধৃতিষ্মান।

এই প্রতিভার কারণে ইতিমধ্যেই তার নাম উঠে গিয়েছে ২০২১ সালে ‘ইন্ডিয়া বুক অফ রেকর্ডস’-এ । এমনকি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পর্যন্ত তাকে নিয়ে একটি টুইট শেয়ার করেছিলেন। পাঁচ বছর বয়সে যেখানে অন্যান্য অনেক বাচ্চা ঠিকঠাক কথা পর্যন্ত বলতে পারেনা, সেই জায়গায় এই শিশুটি প্রায় ৭০ টি গান রেকর্ড করে ফেলেছে। কি অবাক করার মতন তাই না? মিঠাই ধারাবাহিকটি জমিয়ে দেখলেও আপনারা হয়তো এই ক্ষুদে শিশুর পরিচয় সত্যিই জানতেন না ‌ মিঠাই এবং সিদ্ধার্থের এই অনস্ক্রিন ছেলের কিন্তু নিজস্ব ফেসবুক পেজ আর ইউটিউব চ্যানেলও রয়েছে।

তার ফেসবুক পেজের ফলোয়ার সংখ্যা প্রায় ২৩ হাজার অন্যদিকে ইউটিউবের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা ৫.৭৭ হাজার। প্রায় সময় নিজের পেজ এবং চ্যানেল থেকে নানান ধরনের গানের ভিডিও শেয়ার করে থাকে ধৃতিষ্মান। জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী লতা মঙ্গেশকরের জন্মদিন উপলক্ষে সম্প্রতি এরকমই একটি গান নিজের পেজ থেকে শেয়ার করে নিয়েছিল সে , যা মুহূর্তেই হয়ে উঠেছে ভাইরাল। এই ভাইরাল ভিডিওটিতে ‘পিয়া তো সে নেয়না লাগে রে’ গানটি গাইতে দেখা যাচ্ছে তাকে। এখনো পর্যন্ত বহু দর্শক এই সুন্দর ভিডিওটি দেখে নিয়েছেন এবং নিজেদের মতামত কমেন্ট বক্সে শেয়ার করেছেন। প্রিয় মিঠাই আর উচ্ছে বাবুর ছেলের এই প্রতিভা দেখে আপ্লুত হয়ে পড়েছেন ধারাবাহিকের অনুরাগীরাও।

Back to top button