বাড়ির ছাদে বা উঠোনে টমেটো গাছ লাগিয়ে গোড়ায় দিন এই একটি ঘরোয়া উপাদান, অল্পদিনেই পাবেন দারুণ ফলন

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের সকলেরই একটি অত্যন্ত পরিচিত সবজি হল টমেটো। এই সবজি যেমন বিভিন্ন রান্নায় যোগ করা হয়, ঠিক তেমনভাবেই কিন্তু চাটনি আচার অথবা বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন সস বা কেচাপ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। ভারতীয় বাজারে টমেটো চাষ করে বিপুল অর্থ উপার্জন করে থাকেন কৃষকেরা। আপনারা চাইলে কিন্তু নিজেরাও এই চাষ শুরু করতে পারেন।

আজ আমরা আপনাদের সাথে এমন একটি প্রতিবেদন শেয়ার করতে চলেছি যেখানে টমেটো গাছে কি ধরনের খাবার দেওয়া হবে থেকে শুরু করে গাছের বিভিন্ন সমস্যায় কি করনীয় সবকিছুই আলোচনা করা হবে। সুতরাং পাঠকদের মধ্যে কেউ যদি টমেটো চাষে আগ্রহী হয়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আমাদের এই প্রতিবেদনটি একেবারে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ে ফেলুন।

টমেটো গাছে ভালো ফলন নিয়ে আসার জন্য অবশ্যই আপনাদের প্রথমে সঠিকভাবে গাছ লাগাতে হবে। গাছে বেশি ফলন ধরানোর জন্য আপনাদের চারা থেকে চারার দূরত্ব রাখতে হবে ৪০ সেন্টিমিটার। দুই সারি পর পর একটি করে নালা দিয়ে দেবেন। এতে জল প্রয়োগের সময় যেমন সুবিধা হবে ঠিক তেমনভাবেই অতিরিক্ত জল পড়লে সেটা সহজে বের করা যাবে। গাছের গোড়ায় অতিরিক্ত জল জমে গেলে কিন্তু শিকড় পচে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

গাছের গোড়াতে একেবারে প্রথমদিকে যে শাখা গুলো বের হয় সেগুলো আপনাদের অবশ্যই ভেঙে দিতে হবে। এটিকে স্ক্রিমিং বলা হয়ে থাকে। এই শাখা গুলো ভেঙে দেওয়ার কয়েক দিনের মধ্যেই কিন্তু আবার গোড়া থেকে কুশি বেরোতে শুরু হয়ে যাবে। এই ছোট্ট কুশি গুলো কেও আপনাদের কে টেস্ট সেকেন্ড স্ক্রিমিং করে নিতে হবে। আসলে এই সমস্ত শাখা গুলো থাকলে গাছের ফুল-ফল চট করে আসে না। গাছের সমস্ত পুষ্টিরস এই কুশিগুলোতেই চলে যায়।

যদি কোনো কারণে টমেটো গাছে কম ফুল আসে সে ক্ষেত্রে মাথার দিকের কুশি গুলোকে ভেঙে দিতে হবে। এতে ফুল আসার জন্য যে পুষ্টি উপাদান থাকে সেটা গাছে ব্যবহার হবে না। সরাসরি ফুল আনার জন্যই গাছ সরবরাহ করতে পারবে। তবে এই স্ক্রিমিং করতে গিয়ে কিন্তু অতিরিক্ত পাতা কেটে দেওয়া যাবে না। তাহলে কিন্তু হিতে বিপরীত হয়ে যেতে পারে। পাশাপাশি আপনাদের আরো কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে যেমন, গাছের চারপাশে কেন কোনভাবেই আগাছা জন্ম না নিতে পারে। যখন টমেটো গাছ বড় হতে শুরু করবে তখন একটা শক্ত লাঠির সাথে আপনাকে এটা বেঁধে দিতে হবে। এতে গাছের বৃদ্ধি ভালো হওয়ার পাশাপাশি দ্রুত ফুল আসবে ‌।

লক্ষ্য রেখে দেখবেন টমেটো গাছের ফুল আসার আগে বা পরে পাতা ব্যাপকভাবে কুঁকড়ে যায়। এই সমস্যাটি দুটি কারণে হতে পারে। প্রথমত গাছে পোকার উপদ্রব হলে। এই পোকামাকড়ের আক্রমণ দূর করার জন্য সামান্য ডিটারজেন্ট পাউডার নিয়ে জলে মিশিয়ে গাছে প্রয়োগ করতে পারেন। তবে ঠিক ফুল আসার আগেই এই ঘটনা ঘটলে সাইপারমেথ্রিন গ্রুপের যে কোন কীটনাশক ২ মিলি প্রতি লিটার জলে মিশিয়ে স্প্রে করুন। এছাড়াও গাছের পাতা অনেক সময় হলুদ হয়ে যায় অথবা টমেটো গাছের ফুল আসলেও কিন্তু সেগুলো কালো হয়ে যায়। এটাও কিন্তু পোকামাকড়ের আক্রমণের কারণেই ঘটে থাকে।

গাছের মধ্যে থাকা বয়স্ক পাতাগুলোকে যত দ্রুত সম্ভব ছিড়ে দেবেন কারণ এগুলোতেই বেশি প্রকার উপদ্রব হয়ে থাকে। ফুল আসার ঠিক আগ মুহূর্তে গাছে মিরাকুল্যার স্প্রে করতে হবে। এটির প্রভাবে কখনোই গাছ থেকে ফুল ঝরে পড়বে না। এভাবে স্টেপ বাই স্টেপ যদি আপনারা টমেটো গাছের চাষ করতে পারেন এবং সঠিক যত্ন নিতে পারেন তাহলে পরবর্তী কয়েক দিনের মধ্যেই কিন্তু বাম্পার ফলন পাবেন। এই টমেটো বাজারজাত করে কিন্তু বেশ বড় অংকের অর্থ লাভ করতে পারবেন সহজেই। গাছপালা সংক্রান্ত আর কোন ধরনের সমস্যা হলে আমাদের প্রতিবেদনের কমেন্ট বক্সে নিজেদের প্রশ্ন জানাতে পারেন।।

ভিডিওটি দেখতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন – https://youtu.be/hjrVsaOEBEE

Back to top button