বাড়ির ছাদে বা উঠোনে খুব সহজেই এইভাবে লাগান গাঁদার বীজ! মাত্র ১৫দিনেই হবে নতুন চারা গ্যারান্টি

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতকালের অন্যতম ফুলের মধ্যে একেবারে প্রথম স্থানেই রয়েছে গাঁদা ফুল। যদিও গোটা বছর ধরেই বাজারে পুজো পার্বণের বিচারে এই ফুলের চাহিদা থাকে, তবে শীতকালে যেন সেটা আরো বেড়ে যায়। এই সময় অনেকেই কিন্তু বাড়িতেও গাঁদা ফুলের চাষ করে থাকেন। যারা মনে করছেন এটা হয়তো বিশেষ কঠিন কাজ তাদের উদ্দেশ্যে বলে রাখি একেবারেই নয়।

সহজেই বাড়িতে গ্যাঁদা ফুলের বীজ থেকে চারা তৈরি করা যেতে পারে। এর জন্য আপনাকে খালি স্টেপ বাই স্টেপ কয়েকটা পদ্ধতি অতিক্রম করতে হবে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তা নিয়েই সমস্ত কিছু আলোচনা করতে চলেছি। আপনারা যারা বাগানপ্রেমী মানুষ রয়েছেন এবং গাঁদা ফুল চাষে আগ্রহী রয়েছেন অবশ্যই মনোযোগ সহকারে প্রতিবেদনটি পড়ে ফেলুন।

গাঁদা ফুলের বীজ থেকে চারা তৈরীর সম্পূর্ণ পদ্ধতি:

গাঁদা ফুলের বীজ থেকে চারা তৈরির জন্য আমাদের এরকম ম্যাজুরেটেড বীজ সংগ্রহ করে নিতে হবে। যদি আপনারা এগুলো সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন তাহলে পরবর্তী বছরগুলোতেও কিন্তু এখান থেকেই চারা তৈরি করে নিতে পারবেন। চারা তৈরির জন্য কয়েকটি ফুল থেকে আপনাদের এই বীজগুলো প্রথমে সংগ্রহ করে নিতে হবে। তারপর এই বীজগুলোকে বপন করার জন্য আপনাদের কিছুটা পরিমাণ কোকোপিট আর বালি মিশিয়ে নিতে হবে।

এর পরিবর্তে আপনারা বেলে দোয়াশ মাটিতেও বপণের কাজ করতে পারেন। এতে কোন অসুবিধা হবে না। চারা তৈরীর জন্য একেবারে সাধারন করেই মাটি প্রস্তুত করতে হবে। এরপর বীজগুলোকে এই কোকো পিট আর বালির মিশ্রণের উপর অথবা মাটির উপরে আলগা করে ছড়িয়ে দিন। বপন করার কাজ শেষ হলে এর উপরেও একটা পাতলা মাটির লেয়ার তৈরি করে দেবেন।

তবে অতিরিক্ত মাটিচাপা দেবেন না। তাহলে কিন্তু অঙ্কুরোদগমের শতকরা ভাগ অনেকটাই কমে যেতে পারে। বীজ জার্মিনেশন এর ক্ষেত্রে জলের ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। বপন করার পরে আপনাদের অবশ্যই পরিমাণমতো জল দিয়ে একটা প্লাস্টিকের ঢাকনা দিয়ে টব টাকে ঢেকে দিতে হবে। প্লাস্টিকের যে কোন জিনিস দিয়ে এভাবে কভার করে রাখলে টবের তাপমাত্রা স্বাভাবিক থাকবে। মোটামুটি ১০ থেকে ১২ দিনের মধ্যেই বীজগুলো খুব সুন্দর ভাবে জার্মিনেশন হয়ে যাবে। চারাগুলো যাতে সুস্থ-সবল অবস্থায় থাকে তাই এরপর থেকেই আপনাদের হালকা রৌদ্রজ্জ্বল জায়গায় রাখতে হবে।

পাশাপাশি অবশ্যই দিনের দুবেলা স্প্রের মাধ্যমে জল প্রয়োগ করতে হবে। ব্যাস তাহলেই গাঁদা ফুলের ছোট্ট চারা গুলো ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে। চারা গুলো পরিণত অবস্থায় পৌঁছে গেলে খুব সহজেই এটা কিন্তু কোন খোলা মাটিতে বা বড় টবে আপনারা প্রতিস্থাপন করে দিতে পারবেন। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদন আপনাদের কেমন লাগলো তা অবশ্যই জানাতে ভুলবেন না।

Back to top button