বাড়িতে বসেই খুব সহজেই অল্প পুঁজিতে শুরু করুন এই ইউনিক ব্যবসা, মাস গেলে আয় হবে প্রচুর

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের আশেপাশের সাধারণ মধ্যবিত্ত মানুষের জন্য যত ধরনের ব্যবসা জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে তার মধ্যে অন্যতম হলো গার্মেন্টসের ব্যবসা অর্থাৎ বস্ত্র ব্যবসা। এই ব্যবসার দুটো ভাগ রয়েছে যথাক্রমে লেডিস গার্মেন্টস এবং জেন্টস গার্মেন্টস। তবে এর মধ্যে লেডিস গার্মেন্টস বেশি জনপ্রিয় কারণ মহিলারা সব থেকে বেশি কেনাকাটা করে থাকেন এবং তাদের পোশাকের ভ্যারাইটিও অনেক বেশি।

সুতরাং একটা ভালো লোকেশনের মধ্যে আপনারা যদি লেডিস গার্মেন্টস এর ব্যবসা করতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনাদের উন্নতি কেউ আটকাতে পারবেনা। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সাথে এই বস্ত্র ব্যবসা সম্পর্কেই বিস্তারিত তথ্য শেয়ার করে নিতে চলেছি। আশা করছি এই প্রতিবেদনটি আপনাদের অনেকটাই সাহায্য করবে। চলুন তাহলে দেরি না করে আজকের এই প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।।

গার্মেন্টসের ব্যবসা বা বস্ত্র ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাদের সবসময় ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিটের ঠিকানা সংগ্রহ করতে হবে। মনে রাখবেন আপনার আশেপাশের দোকানে যারা বস্ত্র ব্যবসায়ী রয়েছেন তারা কিন্তু সর্বদা কলকাতা অথবা শান্তিপুর থেকেই হোলসেল রেটে মাল কিনে থাকেন। এই হোলসেল রেটে জিনিস যদি আপনি কেনেন সে ক্ষেত্রে ক্রেতারা আপনার দোকানে আসবে কেন? অবশ্যই আপনাকে এমন জায়গা খুঁজে নিতে হবে যেখানে বস্ত্র ম্যানুফ্যাকচারিং করা হয়। প্রতিবেদনের শেষে আমরা সেরকম একটি ঠিকানা আলোচনা করে দেব। তবে তার আগে এই ব্যবসার বিভিন্ন দিক সম্পর্কে একটু জানিয়ে দেওয়া যাক।

গার্মেন্টসের ব্যবসা আপনারা কিন্তু অত্যন্ত স্বল্প মূলধনেও শুরু করতে পারেন। তবে যদি লাভবান হতে চান তাহলে চেষ্টা করবেন একবার একটু বেশি মূলধন বিনিয়োগ করার। কারণ আপনি যত বেশি মূলধন বিনিয়োগ করতে পারবেন ততটাই কিন্তু কম দামে পণ্য কিনতে পারবেন। খেয়াল রাখবেন আপনি যে দোকান থেকে নিজেদের জিনিস বিক্রি করছেন সেটা যেন খুব ভালো লোকেশনের মধ্যে হয়।

একদম বাজারের মধ্যে যদি দোকান হয়ে থাকে সে ক্ষেত্রে কিন্তু ক্রেতারা খুবই আকৃষ্ট হবে। যদি আপনি অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার কথা ভাবছেন, সেক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাদের প্যাকেজিং এর উপর নজর দিতে হবে। প্যাকেজিং যত ভালো হবে গ্রাহকেরা কিন্তু প্রোডাক্ট তত বেশি দামি কিনবে। তাই প্যাকেজিংয়ের সামগ্রী একটু ভালো কোয়ালিটির রাখার চেষ্টা করবেন। মনে রাখবেন প্যাকেজিং এর কারণেই কিন্তু আপনার প্রোডাক্টের দাম কয়েক গুণ বেড়ে যেতে পারে।

সব সময় চেষ্টা করবেন আধুনিক হাল ফ্যাশনের জিনিস বেশি করে কালেকশনে রাখার। আপনার কাছে যত বেশি কালেকশন থাকবে ঠিক ততটাই কিন্তু আপনি ক্রেতাদের নজরে আসবেন। এবার সবশেষে আসা যাক ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিটের কথায়। আজ আমরা আপনাদের একটি গুজরাটের ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিটের কথা বলব। আমাদের বাংলা থেকে মাত্র 1800 কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে রয়েছে গুজরাট।

যদি কয়েকদিন হাতে সময় নিয়ে এখানে গিয়ে আপনারা ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিট অর্থাৎ বস্ত্র তৈরির কারখানা থেকে একসাথে একটু বেশি ব্যয়ে জিনিস কিনে নিয়ে আসতে পারেন, তাহলে কিন্তু অনেকটাই লাভবান হবেন। সব থেকে বড় ব্যাপার যারা স্থানীয় এলাকার মধ্যে হোলসেল রেটে পণ্য কিনে বিক্রি করছেন আপনি তাদের দাম ছাপিয়ে যেতে পারবেন। সাধারণ ক্রেতারাও কিন্তু আপনার দিকেই বেশি আকৃষ্ট হবে।
Shop Name – ajmira fashion (Gujrat)
Contact – 8780375892/9998962536.

Back to top button