নিজের বাবার শ্রাদ্ধে চর্ব্যচোষ্য গিলে ফুড ভ্লগিং করতেই ব্যস্ত আদুরে কন্যা, ভিডিও দেখে হাঁ নেটবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার মতন আর কোন প্ল্যাটফর্ম হয়তো আমাদের কাছে নেই। প্রতিনিয়ত এই মাধ্যমে বহু ব্যবহারকারী যুক্ত হচ্ছেন এবং ধীরে ধীরে এই মাধ্যমের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাপ্লিকেশন গুলির মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয় হলো ইউটিউব। এই ইউটিউবের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত বহু মানুষ নিজেদের রোজনামচা বা ভ্লগিং শেয়ার করে থাকেন।

এটি বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে যেমন ফুড ভ্লগিং, ট্রাভেল ভ্লগিং অথবা দৈনন্দিন ভ্লগিং। মানুষ এই জাতীয় ভিডিও দেখতে পছন্দ করেন যার ফলে অনেকেই কিন্তু এই ভিডিও বানান এবং ভাইরাল হয়ে ওঠেন। কিন্তু সম্প্রতি কয়েকদিন আগে এই ভ্লগিং সংক্রান্ত এমন একটি ভিডিও নেট মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে উঠেছে যা দেখে রীতিমত চক্ষু চড়কগাছ নেটিজেনদের।।

আসলে সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায় ভাইরাল এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে রুহি রায় নামের একজন মহিলা নিজের বাবার শ্রাদ্ধের ফুড ভ্লগ তৈরি করেছেন। কিভাবে মানুষ এই ধরনের কোন কাজ করতে পারেন সেটা নিয়েই প্রশ্ন রয়েছে দর্শকদের মধ্যে! শ্রাদ্ধের মতন দুঃখজনক অনুষ্ঠানেও যে এরকম ভিডিও বাড়ানো যেতে পারে সেটা হয়তো প্রথমবার কেউ দেখলো। বিশেষ করে সে যদি মৃত ব্যক্তির মেয়ে হয় তাহলে তো আর কিছুই বলার নেই।

ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পরে অনেকেই দাবি করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় জনপ্রিয় হওয়ার লক্ষ্যে মানুষের মধ্যে থেকে ন্যূনতম মনুষ্যত্ব বোধটাও হারিয়ে যাচ্ছে। নয়তো কখনোই নিজের বাবার শ্রাদ্ধে এভাবে কি ভিডিও বানাতে পারে কেউ? ভাইরাল সেই ভিডিওতে দেখা যায় বাবার শ্রাদ্ধ উপলক্ষে রুহি রায় নামে ওই মহিলা গোটা দিন ধরে কিভাবে খাওয়া-দাওয়া করেন পুরোটাই শেয়ার করে নেন সেখানে।

পাশাপাশি বাবার শ্রাদ্ধের দিন বন্ধুর সঙ্গে দোকানে গিয়ে লেমনেড খেতেও দেখা গিয়েছে ওই মহিলাকে। ভিডিওর শুরুতেই দুর্দান্ত ফেস এক্সপ্রেশনের সাহায্যে ওই মহিলা জানান যে আজকে তার বাবার শ্রাদ্ধ সুতরাং তিনি একবেলায় খাবার খেতে পারবেন। এরপর ব্রেকফাস্টে তিনি খাবার হিসেবে দেখান ওটস মিল, এবার দুপুরের খাবার হিসেবে তিনি জানান মায়ের হাতের মেথির পরোটা নিয়ে এসেছেন তিনি।

এরপর এক বন্ধুর সাথে দোকানে গিয়ে পিংক লেমোনেড খাবার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন ওই মহিলা। তবে সেটি না থাকায় অন্য একটি ড্রিংক খেতে হয় তাকে। সেটার যে স্বাদ খুব একটা ভালো নয় এটাও স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে তিনি ভিডিও শেষ করেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি ভাইরাল হতে না হতেই সমালোচনার ঝড় বয়ে গিয়েছে। এই প্রসঙ্গে আপনাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত অবশ্যই কমেন্ট বক্সে শেয়ার করে নিতে ভুলবেন না।

Back to top button