নিজের হাতে করে ছেলের মত হনুমানকে খাইয়ে দিচ্ছেন মহিলা, শান্তভাবে খাচ্ছে হনুমানও, ভিডিও পোস্ট হতেই চরম ভাইরাল

নিজস্ব প্রতিবেদন: বর্তমান সময়ে যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে আমাদের প্রথমেই যে প্লাটফর্মের কথা মাথায় আসে সেটি হল সোশ্যাল মিডিয়া। বিশেষ কোনো খরচা ছাড়াই অল্প সময়ের মধ্যে এই প্লাটফর্মের সাহায্যে আমরা দূর-দূরান্তের মানুষের সাথে যোগাযোগ বজায় রাখতে পারি। শুধুমাত্র তাই নয় অনেক ক্ষেত্রেই কিন্তু এই সোশ্যাল মিডিয়া আমাদের জীবন আর জীবিকা বজায় রাখতেও সাহায্য করছে। বহু বেকার যুবক-যুবতীরা রয়েছেন যারা এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন ছোটখাট ব্যবসা করে অর্থ উপার্জন করে সংসার চালান। আবার এমন বহু প্রতিভাবান ব্যক্তিত্ব রয়েছে যারা এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই নিজেকে সমাজের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন।

মানুষ থেকে শুরু করে জীবজন্তু সকলের অদ্ভুত কর্মকাণ্ড এই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে থাকে। বিশেষ করে জীবজন্তু সংক্রান্ত ভিডিও তো দেখতে বেশ পছন্দ করেন নেট নাগরিকরা। কারণ মানব সমাজের বিভিন্ন দৃশ্য খালি চোখে দেখা গেলেও জীবজন্তুর দৃশ্য কিন্তু চট করে দেখা যায় না। আমরা সকলেই কমবেশি জানি মানুষের পূর্ববর্তী প্রজাতি হচ্ছে বাঁদর। আমরা যুগের উন্নতির সাথে সাথে ধীরে ধীরে হোমো স্যাপিয়েন্স বা উন্নত মানবের পরিণত হয়ে গেলেও বাদররা কিন্তু এখনো বনের বাসিন্দাই রয়ে গিয়েছে। তবে সভ্য মানব সমাজের সাথে তাদের যোগাযোগ নেই একথা কিন্তু একেবারেই বলা যায় না।

সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ভাইরাল ভিডিওর মাধ্যমে আপনারা প্রায় সময় কিন্তু নানান ধরনের বাঁদরের ভিডিও দেখতে পাবেন।। সম্প্রতি এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে উঠেছে যা দেখে রীতিমতন অবাক সকলে। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে বাড়ির উঠোনের মধ্যে বাটিতে করে কোন একটি খাবার এক বাদরকে খাইয়ে দিচ্ছেন মহিলা। ঠিক যেরকমভাবে ছোট কোন বাচ্চাকে খাওয়ানো হয় ঠিক তেমনভাবেই চামচ দিয়ে এই বাঁদরটিকেও খাওয়ানো হচ্ছে। দেখেই বোঝা যাচ্ছে এই বাঁদরটিকে ওই মহিলা নিজের সন্তানের মতোই লালন পালন করেছেন বা ভালোবাসেন।

জানা গিয়েছে এই বানরটির নাম মনিকা।সে এই বাড়িরই একজন সদস্যের মতন। ছোট থেকেই সে বাড়িতে রয়েছে এবং অন্যান্য কোন বাচ্চার মতই তাকে লালন পালন করা হয়েছে। তবে বাদরটিকে দেখলে আপনারা কিন্তু এর বন্যদিক চট করে বুঝতে পারবেন না। সম্ভবত সভ্য সমাজের মানুষজনের সঙ্গে থেকে তার মধ্যেও বেশ কিছু পরিবর্তনের চেয়ে। মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে শেয়ার করায় এই ভিডিওটি এখনো পর্যন্ত প্রায় ২ হাজারের কাছাকাছি মানুষ দেখে নিয়েছেন এবং পছন্দ করেছেন। প্রতিবেদনটি ভালো লেগে থাকলে আপনারাও দেখে নিতে পারেন এই ভিডিও।

Back to top button