বিনা খাটনিতে খুব সহজেই এইভাবে ঝটপট বানিয়ে ফেলুন দুর্দান্ত স্বাদের কড়াইশুঁটির কচুরি, স্বাদ মুখে লেগে থাকার মতো

নিজস্ব প্রতিবেদন: শীতকাল হলেই মনটা কেমন যেন কড়াইশুটির কচুরির দিকে ছুটে যায়। কিন্তু বিভিন্ন ঝামেলার কথা ভেবে হয়তো আর বানানো হয়ে ওঠেনা। তবে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে কোনরকম পুর বানানোর ঝামেলা ছাড়াই মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে কিভাবে কড়াইশুঁটির কচুরি তৈরি করে নিতে পারেন তা নিয়ে আলোচনা করব। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আজকের এই রেসিপিটি শুরু করা যাক। আশা করছি এই রেসিপিটি পড়ার পর আপনাদের আর কড়াইশুঁটির কচুরি বানাতে কোন সমস্যা হবে না।

প্রথমেই ২০০ গ্রাম পরিমাণ কড়াইশুঁটি ছাড়িয়ে নিতে হবে। এবার একটা করাই গরম করে নিয়ে তাতে একটা শুকনো লঙ্কা আর হাফ চা চামচ গোটা জিরে দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ এটাকে ড্রাই রোস্ট করে নেওয়ার পর একটা মিক্সিং জারের মধ্যে চারটে কাঁচা লঙ্কা, ২ ইঞ্চি আদা, এক চা চামচ মৌরি এবং ড্রাই রোস্ট করে নেওয়া শুকনো লঙ্কা আর গোটা জিরে নিয়ে নিন। সমস্ত উপকরণগুলোকে মিহি করে ব্লেন্ড করুন। তারপর আবারও এর মধ্যে কড়াইশুঁটি গুলোকে দিয়ে আরো একটা ব্লেন্ড করতে হবে। এবার এই মিশ্রণের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ জল আর হিং দিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন।

একটা বড় মিক্সিং বোলের মধ্যে ময়দা , স্বাদমতো লবণ, চিনি এবং কিছুটা পরিমাণ রিফাইন্ড ওয়েল দিয়ে দিন। তারপর ভালোভাবে আপনাদের ময়ান দিয়ে ধীরে ধীরে মিশ্রণটা তৈরি করে রেখেছিলেন কড়াইশুঁটি দিয়ে তার সাথে কিছুটা পরিমাণ জল ব্যবহার করে মেখে নিতে হবে। মাখা হয়ে গেলে কিছুক্ষণ সময় এটাকে রেস্ট রাখতে হবে। তারপর দুটো বড় বড় লেচি কেটে গোলা তৈরি করে ফেলুন।

এবার একটা বড় চপিং বোর্ডের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ ময়দা ছড়িয়ে একটা বড় গোল তৈরি করে নিন। সেটার মধ্য থেকে ছোট গোল বাটির সাহায্যে আপনাদের কচুরির সেপের কিছুটা অংশ কেটে নিতে হবে। এভাবে পুরো মিশ্রণটা থেকেই বেলার পর কচুরি শেপের অংশ কেটে নিয়ে সেগুলোকে কড়াইতে গরম তেলে ভেজে ফেলুন। ব্যাস তাহলেই কোনো রকম পুর বানানো বা আলাদা ঝামেলা ছাড়া সহজেই কড়াইশুঁটির কচুরি তৈরি হয়ে যাবে। খেতে কেমন লাগলো তা জানাতে অবশ্যই ভুলবেন না।

Back to top button